বাস্তবের গ্রীন সিটি হোক ধুপগুড়ি

সানী রায় Jul 12, 2021 - Monday ডুয়ার্স 838




কর্পোরেট ধাঁচে তৈরি কাঁচে মোড়া ঝাঁ চকচকে বিশালাকার বিল্ডিং টি ধুপগুড়ি মিউনিসিপ্যালিটির অফিস। গোটা উত্তর বাংলায় এরকম পৌরভবন দ্বিতীয় টি আর নেই। পৌর শহরে দৃষ্টিনন্দন ঝাঁ-চকচকে আরো বহু নির্মাণ রয়েছে। ব্লক ডেভলপমেন্ট অফিস থেকে মিউনিসিপ্যাল বাস টার্মিনাস, থানা , বৈদ্যুতিক চুল্লির শ্মশান সমস্ত কিছুই ঝাঁ চকচকে। এমনকি ধুপগুড়ি রেল স্টেশনটিও ঝাঁ চকচকে। পৌরসভার উদ্যোগে গোটা পৌর এলাকাকে আলোক সজ্জায় সজ্জিত করা হয়েছে। পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডের মধ্যে সংক্ষিপ্ত যাতায়াতের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে বেশ কিছু সংযোগ সেতু। পৌরসভার প্রায় প্রতিটিএলাকা সিসি টিভির আওতায়।এক কথায় ধুপগুড়ি পৌরসভা আর পাঁচটি পৌর শহরের চাইতেও একেবারেই ভিন্ন।



কিন্তু এই শহরেই কিছু বিপরীত ছবি রয়েছে যা মন খারাপ করে দেয় , শুধু, দৃশ্য দূষণ নয়, পরিবেশ দূষণ ও ঘটাচ্ছে। নাগরিকরা পুরসভাকে ট্যাক্স গুনলেও পরিষেবা যেখানে শূন্য।



পৌরসভার উদ্যোগে জাতীয় সড়কের ওপর ঢাউস আকারের সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে , যেখানে লেখা *Clean Dhupguri Green Dhupguri* কিন্তু পৌর কর্তৃপক্ষ কি কি জানেন এই সাইনবোর্ড যেখানে লাগানো হয়েছে ,ঠিক সেখানেই এই বার্তার পুরো উল্টো ছবি দেখা যাচ্ছে।

পৌরসভার রাস্তার ওপরেই ব্যানারে লেখা *Say no to Plastic Carry Bags* কিন্তু সেখানেও বিপরীত ধর্মী ছবি লক্ষ্য করা গেল।

দীর্ঘদিনের দাবি ডাম্পিং গ্রাউন্ড আজও গড়ে ওঠেনি। ফলে পৌরসভার ১৬ টি ওয়ার্ডের পাড়ায় পাড়ায় সর্বজনীন ডাম্পিং গ্রাউন্ড গজিয়ে উঠেছে। যেখানে ভোর হতেই পাড়ার কাকিমা মাসিমা অথবা কাজের মাসি টুক করে ছুঁড়ে মারেন বাড়ির বর্জ্য আবর্জনা।ওয়ার্ড না হয় ছেড়েই দিন ধুপগুড়ি ট্রাফিক হতে ফালাকাটা রোড হোক কিংবা জলপাইগুড়ি কিংবা বীরপাড়া রোডের একই দশা।রাস্তার ডিভাইডার পার্থেনিয়াম ও আগাছায় ভরে গেছে।পৌরসভার উদ্যোগে জায়গায় জায়গায় ডাস্টবিন রাখা আছে কিন্তু সেসব ডাস্টবিন ভর্তি হয়ে রাস্তায় উপচে পড়ছে নোংরা আবর্জনা।কোথাও ভ্রাম্যমাণ গবাদি পশু সেইসব নোংরা চিবাচ্চে তো কোথাও শকুন এসে মুখ দিচ্ছে।এখানেই শেষ নয় ! পৌর এলাকার প্রায় প্রত্যেক দোকানের সামনেই ছোট ছোট আবর্জনার চোখে পড়ে। অসচেতনতার প্রভাব তো অবশ্যই আছে। এরই পাশাপাশি নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী এবং পরিবেশ প্রেমীদের দাবি ধুপগুড়ি পৌরসভার নজরদারির অভাবেই এইসব হচ্ছে।সাধারণ মানুষের একটাই কথা আমাদের প্রানের শহর ধুপগুড়ি কোন ব্যানারে গ্রীন না হয়ে ধুপগুড়ি বাস্তবে হয়ে উঠুক গ্রীন ধুপগুড়ি ।

আপনাদের মূল্যবান মতামত জানাতে কমেন্ট করুন ↴

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন

আপনার পছন্দ

বিজ্ঞাপন
PMJOK

আরও খবর

বিজ্ঞাপন
PMJOK