লাগামছাড়া বিদ্যুৎ বিলে মাথায় হাত গৃহকর্তার

সহ সম্পাদক ঝিলাম দেব Jul 03, 2020 - Friday নিউজ রুম 506


একদিকে বেড়েই চলছে পেট্রোল, ডিজেল, গ্যাসের দাম এই নিয়ে নাজেহাল মানুষ। সাথে সাথে সমস্ত জিনিসের দাম প্রায় ঊর্ধ মুখি হওয়ায় প্রতিবাদের ঝড় উঠছে সর্বত্র। তার মধ্যে মাসের শুরুতেই বিদ্যুৎ বিলের স্লিপ আরও ব্লাড প্রেশার বাড়িয়ে দিচ্ছে গৃহকর্তার। বিলের অঙ্ক দেখে চক্ষু চড়কগাছ। লকডাউনের বাজারে হাত শূন্য, ব্যবসা-বানিজ্যের করুন দশা। এমন সময়ে লাগাম ছাড়া বিদ্যুৎ বিলে স্বভাবিক ভাবেই মাথায় হাত পরেছে গৃহস্বামীর।


অবসরপ্রাপ্ত বিনদ বাবু ছুটছিলেন সাইকেল নিয়ে বিদ্যুৎ বিল দিতে। কিন্তু বিদ্যুৎ আপিসে পৌঁছে বিল শুনে বুকে হাত দিয়ে পড়ে যাবার জোগাড়। শেষে বিল না দিয়েই বাড়ি ফেরা। এদিকে অস্বাভাবিক বিলের কারনে লেগে যাচ্ছে গৃহযুদ্ধ। কর্তা মশাই অভিযোগ করছেন অকারণেই বাড়ির অন্য সদস্যরা ফাঁকা ঘরে চালিয়ে রাখে ফ্যান আর জ্বালিয়ে রাখে লাইট। লন্ঠন, কুপি কোথায় আছে তার খোঁজ রাখে না কেউ। সেভাবে গরম না পড়তেই এক নাগাড়ে চলছে এসি! এই কারনেই বিদ্যুৎ বিল হয়েছে আকাশ ছোঁয়া।


ডাব্লিউবিএসিডিসিএল থেকে জানা যায়, গত বছর এই সময়ে যা বিদ্যুৎ বিল হয়েছিল তারওপর হিসেব করে গড় বিল করা হয়েছে। যা আগামী কয়েক মাসের বিলের সাথে এডজাস্ট করা হবে।


কিন্তু এই যুক্তিকে মানতে নারাজ উপভোক্তারা, তাদের দাবি এবার যা বিল এসেছে তা কোনো বছরই আসেনি। উল্টো অভিযোগ করছেন অনেকেই, বিদ্যুৎ দপ্তর ইচ্ছেমতো বিল কষেছে।


এদিকে এই অস্বাভাবিক বিদ্যুৎ বিলের কারনে আরও কয়েক ধাপ পিছিয়ে গেলেন ব্যবসায়ীরা এমনই মনে করছেন ব্যবসায়ী সংগঠন গুলি। লকডাউনে এমনিতেই ব্যবসা উঠেছে লাটে তার ওপর এই বিল যেনো গোদের উপর বিষফোড়া। বেশি সমস্যায় পড়ছেন যারা ভাড়া নিয়ে দোকান চালান। লকডাউনে এতদিন বন্ধ ছিল দোকান কিন্তু তবুও গুনতে হয়েছে মাসের ভাড়া। এমন পরিস্থিতিতে বিল দেখে মাথায় হাত প্রত্যেকেরই।

সূত্রে জানা যায়, অস্বাভাবিক এই বিদ্যুৎ বিলের কোপ পড়েছে দেশ জুড়েই। বলিউডের বিভিন্ন তারকারাও বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বিভ্রান্ত। অনেকেই টুইট করে জানতে চেয়েছেন হটাৎ বিল কয়েক গুণ বেড়ে যাবার কারন কি?

বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বিভ্রান্ত না ছড়ানোর জন্য মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, লকডাউনের সময় সম্ভব হয়নি প্রত্যেকের বাড়িতে গিয়ে মিটার রিড নেবার। এই কারনে গত বছরের বিল অনুযায়ী এবারের বিল নেবার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবুও যদি কারো বেশি বিল নেওয়া হয় তা পরের মাসের বিলের সাথে এডজাস্ট করা হবে। তিনি আরও জানিয়েছেন এই নিয়ে সাধারন মানুষের দুশ্চিন্তার কিছু নেই, সব দিক বিচার করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আপনাদের মূল্যবান মতামত জানাতে কমেন্ট করুন ↴

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন

আপনার পছন্দ

বিজ্ঞাপন
HS01


আরও খবর

বিজ্ঞাপন
HS01
Jishu da